1. mohsinlectu@gmail.com : mahsin :
  2. zahiruddin554@gmail.com : Md. Zahir Uddin : Md. Zahir Uddin
বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন
বিশেষ বিজ্ঞপ্তিঃ
 কপোতাক্ষ নিউজে আপনাকে স্বাগতম! (খালি থাকা সাপেক্ষে) দেশের সকল বিভাগ, জেলা, উপজেলা, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস সহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগ: ০১৭২৭-৫৬৭৯৭৬ ## ঝিকরগাছা উপজেলার ভিতর ইংরেজি টিউটর দিচ্ছি, যোগাযোগঃ ০১৯১৮ ৪০৮৮৬৩,mohsinlectu@gmail.com 

সংবিধান সাধারনের কাছেই সাধারন না!

রিপোর্টার
  • আপডেটঃ বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৪০৮ বার পড়া হয়েছে

আমি বাংলাদেশের একজন নাগরিক হিসেবে বাংলাদেশকে ভালোবাসি এবং বাংলাদেশের সংবিধান কে শ্রদ্ধা করি।কিন্তু বাংলাদেশ সংবিধানের কয়েকটা অনুচ্ছেদ নিয়ে আমার মাথায় সবসময় উলোটপালোট হয়।

তারমধ্যে অন্যতম হচ্ছে ২(ক), ৪(ক),১২(২) এবং ৮ম সংশোধনি এবং সেইটা বাতিল, ১৭,১৮, ২২, ৪৮,৭০, ৯৬(২) অর্থাৎ ষোড়শ সংশোধনী এবং ইত্যাদি।

২(ক) অনুযায়ী প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রধর্ম হবে ইসলাম তবে হিন্দু এবং অন্যান্য ধর্ম পালনে রাষ্ট্র সমমর্যাদা এবং সমঅধিকার নিশ্চিত করিবেন অথচ ১২(খ) তে বলা হয়েছে রাষ্ট্র কর্তৃক কোন ধর্মকে রাজনৈতিক মর্যাদা দান বিলোপ করা হইবে।
অনুচ্ছেদ ১২ অনুযায়ী আমাদের একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র।
আমরা জানি ৮ম সংশোধনীর প্রেক্ষাপট। সেখানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আনা হয় সেই সাথে বলা হয় অন্য ধর্মও প্রজাতন্ত্রে শান্তিতে পালন করা যাবে যা সংবিধানের ২(ক) এর ই প্রতিচ্ছবি।
এখানে ২(ক) এবং ৮ম সংশোধনি কিন্তু একই কথা বলে।
এর সাথে দ্বিমত শুধু ১২(খ) যে রাষ্ট্র কর্তৃক কোন ধর্মকে রাজনৈতিক মর্যাদা দান বিলোপ করা হবে।
এখানে আমার প্রশ্ন, ” তাহলে কেনো ২(ক) তে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম রাখা হলো?
একজায়গায় বলা হয়ে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আবার আরেক জায়গায় বলা হয়ে এইটা বিলোপ করা হবে!

৮ সংশোধনীতে আরোও যে বিষয়গুলো নিয়ে আসা হয় তা হলো কিছু নামের বানান পরিবর্তন, রাষ্ট্রপতির অনুমতি ব্যতীত বিদেশি খেতাব গ্রহন নিষিদ্ধকরণ এবং আরেকটি সমালোচিত সংশোধনটি নিয়ে আসা হয় ১০০ তম অনুচ্ছেদে যে সুপ্রিম কোর্টের আসন।ঢাকার বাহিরেও সুপ্রিম কোর্টের ৬ টা আসন থাকবে।এই পরিবর্তন টা সংবিধানের কোন মৌলিক কাঠামোর সাথে সাংঘর্ষিক হয় সেইটা আমার ছোট মাথায় ঢোকে না।

যাইহোক, এইবার আসি সুযোগের সমতার কথা বলা হয়েছে অনুচ্ছেদ ১৯ এ।এই অনুসারে সকল নাগরিক সমান সুযোগ পাবে।এখানে কিন্তু তথাকথিত ভি.আই.পি. দের জন্য এক্সট্রা কোনো সুযোগের কথা বলা হয় নি।পুরো সংবিধানে কোথাও বলা হয়েছে কি না আমার জানা নাই।

অনুচ্ছেদ ১৭ অবৈনিক এবং বাধ্যতামূলক শিক্ষাঃ
যেহেতু বাধ্যতামূলক সেহেতু শিক্ষা কেউ নিতে অস্বীকার করলে তার জন্য কি শাস্তির ব্যবস্থা আছে?মানুষ আইন মানবে এর অন্যতম একটা মতবাদ হচ্ছে শাস্তির ভয়ে।ইটস এবসেন্স হ্যায়ার।
আমাদের দেশে অনেক কলেজ আছে যেখানে উচ্চমাধ্যমিকে মেয়েদের অবতৈনিক শিক্ষা দেওয়া হয় কিন্তু ছেলেদের?উল্লেখ্য, আমার নিজের জেলাই মিজ্ঞা জিন্নাহ আলম ডিগ্রি কলেজেও এমনটা হয়।
ছেলেদের বেতন দেওয়া লাগে মেয়েদের দেওয়া লাগে না।আমিও এর ভুক্তভোগী।

অনুচ্ছেদ ৪(ক) এ বলা হয়েছে জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি সরকারি আধা সরকারি সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং বিদেশি বাংলাদেশ ও মিশনসমূহে সংরক্ষন ও প্রদর্শন করিতে হইবে।কিন্তু যদি কেউ না করে তাহলে তার শাস্তি কী হবে?আমি/আমরা কেউ কি জানি?

সংবিধানের ২২ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে নির্বাহী বিভাগ থেকে বিচার বিভাগ পৃথক তাহলে ষোড়শ সংশোধনীতে আমরা কী লক্ষ্য করি?সংসদের হাতে বিচারপতি অপসারনের ক্ষমতা হস্তান্তর করা হয়েছে!
How far our judiciary independent now?
It’s not my question. It’s badly question to all law students and law professional.

৪৮(৩) অনুযায়ী আপনাদের কাছে কি মনে হয় না রাষ্ট্রপতি সাজানো একটা পুতুল?
৪৮(৫) এর লাস্টের লাইনে “রাষ্ট্রপতি অনুরোধ করিলে” এখানে “অনুরোধ”শব্দটির পরিবর্তে “আদেশ” শব্দটা কি রাষ্ট্রপতির মর্যাদার সাথে বেশি যুক্তিযুক্ত না??

আর ৭০ অনুচ্ছেদ নিয়ে ত বলার কিছু নাই।
নিজের দলের বিরুদ্ধে ভোট প্রদান করলে আমার আসন চলে যাবে।দল ভালো ডিসিসন নিলে অবশ্যই পক্ষে থাকতে হবে।তাই বলে খারাপ সিদ্ধান্ত নিলে বিপক্ষে ভোট দেওয়া যাবে না?

যাইহোক, অনুচ্ছেদ ৭ অনুযায়ী আমি (জনগন) সকল ক্ষমতার মালিক এবং ৩৯ (ক) অনুসারে অবশ্যই আমার বাক ও ভাব প্রকাশের স্বাধীনতা রয়েছে।এইটা আমার মৌলিক অধিকার।কিছু ভুল বললে ভুল শুধরে দিলে অবশ্যই কৃতজ্ঞ থাকিবো।

ধন্যবাদ!

সুমিত হাসান
২য় বর্ষ
সেশনঃ ২০১৯-২০
আইন বিভাগ ;
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© ২০-২২ কপোতাক্ষ নিউজ । এই ওয়েবসাইটের কোনো কন্টেন্ট অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি

ডেভলপমেন্ট এন্ড মেইনটেন্যান্স: মোঃ জহির উদ্দীন